Physics থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন

Physics থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন

​প্রশ্ন:- তড়িৎপ্রবাহমাত্রার ব্যবহারিক একক কী ?
​উত্তর:- তড়িৎপ্রবাহমাত্রার ব্যবহারিক একক হল অ্যাম্পিয়ার ।

​প্রশ্ন:- আধানের ব্যবহারের একক কী ?
​উত্তর:- আধানের ব্যবহারের একক হল কুলম্ব ।

​প্রশ্ন:- তড়িৎ-পরিবাহী ধাতব তারে তড়িতাধানের বাহক কোনগুলি ?
​উত্তর:- তড়িৎ-পরিবাহী ধাতব তারে মুক্ত ইলেকট্রনগুলি হল তড়িতাধানের বাহক ।

​প্রশ্ন:- তড়িচ্চালক বলের একক কী ?
​উত্তর:- তড়িচ্চালক বলের একক হল ভোল্ট ।

​প্রশ্ন:- রোধাঙ্কের একক কী ?
​উত্তর:- C.G.S পদ্ধতিতে রোধাঙ্কের একক হল ওহম-সেন্টিমিটার এবং S.I. পদ্ধতিতে ওহম-মিটার ।

​প্রশ্ন:- সরল ভোল্টীয় কোষের তড়িচ্চালক বলের মান কত ?
​উত্তর:- সরল ভোল্টীয় কোষের তড়িচ্চালক বলের মান হল 1.08 ভোল্ট ।

​প্রশ্ন:- 1 অ্যাম্পিয়ার কাকে বলে ?
​উত্তর:- কোনো পরিবাহীর যে-কোনো প্রস্থচ্ছেদের মধ্য দিয়ে প্রতি সেকেন্ডে 1 কুলম্ব তড়িৎ প্রবাহিত হলে, ওই প্রবাহমাত্রাকে 1 অ্যাম্পিয়ার বলে ।

​প্রশ্ন:- ওহমের সূত্রের গাণিতিক রূপটি কী ?
​উত্তর:- ওহমের সূত্রের গাণিতিক রূপটি হল V = CR ; যেখানে পরিবাহীর দু’প্রান্তের বিভবপ্রভেদ V, পরিবাহীর প্রবাহমাত্রা C, এবং পরিবাহীর রোধ R ।

​প্রশ্ন:- তড়িৎপ্রবাহের তাপীয় ফলের দুটি ব্যবহার উল্লেখ করো ।
​উত্তর:- তড়িৎপ্রবাহের তাপীয় ফলের দুটি ব্যবহারিক প্রয়োগ হল : বৈদ্যুতিক হিটার ও বৈদ্যুতিক ইস্ত্রি ।

​প্রশ্ন:- 1 ভোল্ট কাকে বলে ?
​উত্তর:- কোনো পরিবাহীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে এক কুলম্ব তড়িৎ পাঠাতে যদি এক জুল কার্য করতে হয়, তবে ওই পরিবাহীর বিভব-প্রভেদকে 1 ভোল্ট বলে ।

​প্রশ্ন:- নাইক্রোম তার কী কী ধাতু দিয়ে তৈরি হয় ?
​উত্তর:- নাইক্রোম তার হল নিকেল, ক্রোমিয়াম এবং লোহার সংকর ধাতু ।

​প্রশ্ন:- আধান ও প্রবাহমাত্রার মধ্যে সম্পর্ক কী ?
​উত্তর:- আধান ও প্রবাহমাত্রার মধ্যে সম্পর্ক হল, আধান = প্রবাহমাত্রা x সময় ।

​প্রশ্ন:- ডায়নামোতে কোন শক্তি কোন শক্তিতে রূপান্তরিত হয় ? 
​উত্তর:- ডায়নামোতে যান্ত্রিক শক্তি তড়িৎ শক্তিতে রূপান্তরিত হয় ।

​প্রশ্ন:- আন্তর্জাতিক মতানুসারে কোন বর্ণের লাইভ তার ব্যবহার করা হয় ?
​উত্তর:- বর্তমানে আন্তর্জাতিক মতানুসারে বাদামি রঙের লাইভ তার ব্যবহার করা হয় ।

​প্রশ্ন:- সুইচ কী ?
​উত্তর:- যে ব্যবস্থার সাহায্যে সংহত বর্তনীতে প্রয়োজন মত তড়িৎপ্রবাহ চালু বা বন্ধ করা যায়, তাকে সুইচ বলে ।

​প্রশ্ন:- তড়িৎ চুম্বকত্ব কে প্রথম লক্ষ্য করেন ?
​উত্তর:- তড়িৎ চুম্বকত্ব প্রথম লক্ষ্য করেন বিজ্ঞানী ওরেস্টেড ।

​প্রশ্ন:- তড়িৎ চুম্বকে কোন শক্তি কোন শক্তিতে রূপান্তরিত হয় ?
​উত্তর:- তড়িৎ চুম্বকে তড়িৎ শক্তি চৌম্বকশক্তিতে রূপান্তরিত হয় ।

​প্রশ্ন:- চিকিত্সাশাস্ত্রে তড়িৎ চুম্বকের একটি ব্যবহার উল্লেখ করো ।
​উত্তর:- চোখে লোহার গুঁড়ো পড়লে তা বের করে আনতে চিকিত্সকেরা সূক্ষ্মাগ্র মেরু যুক্ত তড়িৎ চুম্বক ব্যবহার করে থাকেন ।

​প্রশ্ন:- তড়িৎ চুম্বকের মেরু কিভাবে বদলানো যায় ?
​উত্তর:- তড়িৎ প্রবাহের অভিমুখ উল্টে দিয়ে তড়িৎ চুম্বকের মেরু বদলানো যায় ।

​প্রশ্ন:- স্থায়ী চুম্বক তৈরি করতে কাঁচা লোহা ও ইস্পাতের মধ্যে কোনটিকে ব্যবহার করা হয় ?
​উত্তর:- স্থায়ী চুম্বক তৈরি করতে কাঁচা লোহা ও ইস্পাতের মধ্যে ইস্পাত ব্যবহার করা হয় ।

​প্রশ্ন:- বৈদ্যুতিক মোটর ও ডায়নামোর মধ্যে পার্থক্য কী ?
​উত্তর:- বৈদ্যুতিক মোটরে তড়িৎ শক্তি যান্ত্রিক শক্তিতে রূপান্তরিত হয় । কিন্তু ডায়নামোতে যান্ত্রিক শক্তি তড়িৎ শক্তিতে রূপান্তরিত হয় ।

​প্রশ্ন:- অ্যাম্পিয়ার পাক কী ? এর সঙ্গে তড়িৎচুম্বকের মেরু শক্তির সম্পর্ক কী ?
​উত্তর:- তড়িৎচুম্বকের মজ্জার একক দৈর্ঘ্যে কুন্ডলীর পাক সংখ্যা এবং অ্যাম্পিয়ার এককে তড়িৎপ্রবাহমাত্রার গুণফলকে অ্যাম্পিয়ার পাক [Ampere turn] বলে । তড়িৎচুম্বকের মেরু শক্তি অ্যাম্পিয়ার পাকের সমানুপাতিক হয় ।

​প্রশ্ন:- লোহার ভারী বীম সরাতে ক্রেনে কোন চুম্বক ব্যবহার করা হয় ?
​উত্তর:- লোহার ভারী বীম সরাতে ক্রেনে শক্তিশালী তড়িৎ চুম্বক ব্যবহার করা হয় ।

​প্রশ্ন:- চুম্বকের বৈশিষ্ট্য কী কী ?
​উত্তর:- চুম্বকের বৈশিষ্ট্য দুটি হল : [i] আকর্ষণী ধর্ম এবং [ii] দিকদর্শী ধর্ম ।

​প্রশ্ন:- বৈদ্যুতিক মোটরের একটি ব্যবহার উল্লেখ করো ।
​উত্তর:- বৈদ্যুতিক পাখায় বৈদ্যুতিক মোটর ব্যবহার করা হয় ।

​প্রশ্ন:- কোনো বর্তনীতে দুটি রোধকে কোন সমবায়ে যুক্ত করলে তুল্যরোধ উভয় রোধ থেকে কম হবে ? উত্তর:- কোনো বর্তনীতে দুটি রোধকে সমান্তরাল সমবায়ে যুক্ত করলে তুল্যরোধ উভয় রোধ থেকে কম হবে ।

​প্রশ্ন:- আর্থিং তারের রঙ্গিন সংকেত লিপি কী ?
​উত্তর:- আর্থিং তারের রঙ সবুজ হয় ।

​প্রশ্ন:- এমন একটি যন্ত্রের নাম কর যাতে তড়িৎ প্রবাহের উপর চৌম্বক ক্ষেত্রের ক্রিয়া দেখানো যায় ?
​উত্তর:- বার্লোচক্র যন্ত্রে তড়িৎ প্রবাহের উপর চৌম্বক ক্রিয়া দেখানো যায় ।

​প্রশ্ন:- কোন যন্ত্র দিয়ে বিভবপ্রভেদ মাপা হয় ?
​উত্তর:- ভোল্টামিটার যন্ত্রের সাহায্যে বিভবপ্রভেদ মাপা হয় ।

​প্রশ্ন:- ভোল্টামিটার এবং অ্যামমিটারকে বর্তনীতে কিভাবে যুক্ত করা হয় ?
​উত্তর:- তড়িৎ বর্তনীর যে দুটি বিন্দুর বিভব প্রভেদ মাপতে হবে সেই দুটি বিন্দুর সঙ্গে ভোল্টামিটারকে সমান্তরাল সমবায়ে যুক্ত করা হয় । আবার কোনো তড়িৎ বর্তনীর প্রবাহমাত্রা পরিমাপ করতে অ্যামমিটারকে তড়িৎবর্তনীতে শ্রেণি সমবায়ে যুক্ত করা হয় ।

​প্রশ্ন:- ভোল্টামিটার ও অ্যামমিটার দিয়ে কী কী ভৌত রাশি পরিমাপ করা হয় ?
​উত্তর:- ভোল্টামিটার দিয়ে কোনো বর্তনীর দুটি বিন্দুর মধ্যে বিভব প্রভেদ মাপা হয় । আর অ্যামমিটার দিয়ে কোনো তড়িৎ বর্তনীর প্রবাহমাত্রা মাপা হয় ।

​প্রশ্ন:- কোনো বাল্বের ফিলামেন্টের রোধ সাধারণ উষ্ণতায় না ভাস্বর অবস্থায় বাল্বের ফিলামেন্টের রোধ বেশি হবে ?
​উত্তর:- যে হেতু উষ্ণতা বাড়লে রোধ বাড়ে তাই সাধারণ উষ্ণতা থেকে ভাস্বর অবস্থায় বাল্বের ফিলামেন্টের রোধ বেশি হবে ।

​প্রশ্ন:- ‘একটি নির্জল কোষের তড়িচ্চালক বল 1.5 ভোল্ট’ -এর অর্থ কী ?
​উত্তর:- ‘একটি নির্জল কোষের তড়িচ্চালক বল 1.5 ভোল্ট’ -এর অর্থ হল, কোষটির ধনাত্বক মেরু থেকে ঋণাত্বক মেরুতে 1 কুলম্ব পরিমাণ তড়িৎ চালনা করতে 1.5 জুল কাজ করতে হয় ।

​প্রশ্ন:- SI পদ্ধতিতে তড়িৎবিভব -এর একক কী ?
​উত্তর:- SI পদ্ধতিতে তড়িৎবিভব -এর একক হল ‘ভোল্ট’ ।

Physics থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন

প্রশ্ন:- SI পদ্ধতিতে তড়িৎপ্রবাহমাত্রা -এর একক কী ?
​উত্তর:- SI পদ্ধতিতে তড়িৎপ্রবাহমাত্রা -এর একক হল অ্যাম্পিয়ার ।

​প্রশ্ন:- SI পদ্ধতিতে রোধ -এর একক কী ?
​উত্তর:- SI পদ্ধতিতে রোধ -এর একক হল ওহম ।

​প্রশ্ন:- ওয়াট-ঘন্টা দিয়ে কী পরিমাপ করা হয় ?
​উত্তর:- ওয়াট-ঘন্টা দিয়ে তড়িৎ-শক্তি পরিমাপ করা হয় ।

​প্রশ্ন:- ফিউজ তারকে মূল বর্তনীর সঙ্গে কোন সমবায়ে যুক্ত করা হয় ?
​উত্তর:- ফিউজ তারকে মূল বর্তনীর সঙ্গে শ্রেণি সমবায়ে যুক্ত করা হয় ।

​প্রশ্ন:- পরিবাহীর রোধ, পরিবাহীর দৈর্ঘ্য ও প্রস্থচ্ছেদের ওপর কিভাবে নির্ভর করে ?
​উত্তর:- পরিবাহীর রোধ, পরিবাহীর দৈর্ঘ্যের সমানুপাতিক এবং প্রস্থচ্ছেদের ব্যস্তানুপাতিক হয় ।

​প্রশ্ন:- কিলোওয়াট-ঘন্টা দিয়ে কোন ভৌতরাশির পরিমাপ করা হয় ? 
​উত্তর:- কিলোওয়াট-ঘন্টা দিয়ে তড়িৎশক্তির পরিমাপ করা হয় ।

​প্রশ্ন:- একটি থ্রি-পিন প্লাগ টপের ওপরের মোটা পিনটির নাম কী ?
​উত্তর:- থ্রি-পিন প্লাগ টপের ওপরের মোটা পিনটির নাম ভু-সংযোগকারী তার ।

​প্রশ্ন:- একটি আদর্শ ভোল্টামিটারের রোধ কিরূপ হওয়া উচিত ?
​উত্তর:- একটি আদর্শ ভোল্টামিটারের রোধ অসীম হওয়া উচিত ।

​প্রশ্ন:- একটি আদর্শ অ্যামমিটারের রোধ কিরূপ হওয়া উচিত ?
​উত্তর:- একটি আদর্শ অ্যামমিটারের রোধ শূন্য হওয়া উচিত ।

​প্রশ্ন:- কোন যন্ত্র দিয়ে তড়িৎ প্রবাহমাত্রা মাপা হয় ?
​উত্তর:- অ্যামমিটার যন্ত্রের সাহায্যে তড়িৎ প্রবাহমাত্রা মাপা হয় ।

​প্রশ্ন:- লাইভ এবং নিউট্রাল তারের রঙ কী রকমের হয় ?
​উত্তর:- লাইভ তারের রঙ লাল এবং নিউট্রাল তারের রঙ কালো হয় ।

​প্প্রশ্ন:- এক্স -রশ্মির আবিষ্কারক কে ?
​উত্তর:- 1895 সালে জার্মান বিজ্ঞানী ডব্লিউ. রন্টজেন এক্স -রশ্মি আবিষ্কারক করেন ।

​প্রশ্ন:- তেজস্ক্রিয় পদার্থ থেকে কী কী রশ্মি নির্গত হয় ? এদের নাম কী ?
​উত্তর:- তেজস্ক্রিয় পদার্থের পরমাণুর কেন্দ্রক থেকে তিন প্রকার রশ্মি নির্গত হয় । এদের নাম হল —আলফা (α) রশ্মি, বিটা (ß) রশ্মি এবং গামা (γ) রশ্মি ।

​প্রশ্ন:- কী কী পদ্ধতিতে ধাতু থেকে ইলেকট্রন নিঃসরণ করা হয় ?
​উত্তর:- ধাতব পৃষ্ঠ থেকে ইলেকট্রন নিঃসরণের পদ্ধতিগুলি হল —
​(i) তাপীয় আয়ন নিঃসরণ,
​(ii) আলোক তড়িৎ নিঃসরণ
​(iii) ক্ষেত্র নিঃসরণ
​(iv) গৌণ নিঃসরণ ।

​প্রশ্ন:- এক্স -রশ্মি ও গামা রশ্মি মধ্যে কোনটির ভেদন ক্ষমতা বেশী ?
​উত্তর:- এক্স -রশ্মির চেয়ে গামা রশ্মির ভেদন ক্ষমতা প্রায় 100 গুণ বেশী ।

​প্রশ্ন:- এক্স -রশ্মি ও ক্যাথোড রশ্মির মূল পার্থক্য কী ?
​উত্তর:- এক্স -রশ্মি ক্ষুদ্র তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট তড়িৎ-চুম্বকীয় তরঙ্গ । অপরপক্ষে ক্যাথোড রশ্মি হল তীব্র গতিযুক্ত ইলেকট্রন কণার স্রোত ।

​প্রশ্ন:- কোনো ধাতুর কার্য অপেক্ষক বলতে কী বোঝ ?
​উত্তর:- কোনো ধাতব পৃষ্ঠ থেকে বেরিয়ে আসার জন্য একটি ইলেকট্রনের যে নুন্যতম শক্তির প্রয়োজন হয়, তাকে ওই ধাতব পৃষ্ঠের কার্য অপেক্ষক বলে ।

​প্রশ্ন:- এক্স -রশ্মির তরঙ্গ দৈর্ঘ্য কত ?
​উত্তর:- এক্স -রশ্মির তরঙ্গ দৈর্ঘ্য প্রায় সেমি 10-8 বা 1 অ্যাংস্ট্রম ।

​প্রশ্ন:- হাইড্রোজেন বোমা কোন পদ্ধতিতে তৈরি হয় ?
​উত্তর:- নিউক্লিয় সংযোজন পদ্ধতিতে হাইড্রোজেন বোমা তৈরি হয় ।

​প্রশ্ন:- নিউক্লিয় সংযোজন ঘটাতে কত উষ্ণতার প্রয়োজন হয় ?
​উত্তর:- নিউক্লিয় সংযোজন ঘটাতে প্রায় 10 লক্ষ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তারও বেশি উষ্ণতার প্রয়োজন হয় ।

​প্রশ্ন:- তাপীয় আয়ন কাকে বলে ?
​উত্তর:- তাপ প্রয়োগে কোনো ধাতবপৃষ্ঠ থেকে যেসব ইলেকট্রন নিঃসৃত হয়, সেই ইলেকট্রনগুলিকে তাপীয় আয়ন বলে ।

​প্রশ্ন:- তেজস্ক্রিয়ার এস. আই. একক কী ?
​উত্তর:- তেজস্ক্রিয়ার এস. আই. একক হল বেকারেল ।

​প্রশ্ন:- তেজস্ক্রিয় রশ্মিগুলির মধ্যে কার ভেদন ক্ষমতা সবচেয়ে বেশী ?
​উত্তর:- তেজস্ক্রিয় রশ্মিগুলির মধ্যে গামা (γ) রশ্মির ভেদন ক্ষমতা সবচেয়ে বেশী ।

​প্রশ্ন:- একটি মৌল অপর একটি মৌলে স্বতঃস্ফুর্তভাবে পরিবর্তিত হয় এমন একটি প্রাকৃতিক ঘটনার উল্লেখ কারো ।
​উত্তর:- একটি মৌল অপর একটি মৌলে স্বতঃস্ফুর্তভাবে পরিবর্তিত হয় এমন একটি প্রাকৃতিক ঘটনা হল প্রাকৃতিক তেজস্ক্রিয়তা ।

​প্রশ্ন:- ক্যাথোড রশ্মি কাকে বলে ?
​উত্তর:- খুব কম বায়ু চাপে তড়িৎ মোক্ষণ নলে গ্যাসের মধ্যে তড়িৎ-দ্বারের সাহায্যে উচ্চ বিভব পার্থক্য সৃষ্টি করলে ক্যাথোড থেকে অ্যানোডের দিকে ধাবমান তীব্র গতিবেগ সম্পন্ন ইলেকট্রন কণার স্রোতকে ক্যাথোড রশ্মি বলে ।

​প্রশ্ন:- দুটি প্রাকৃতিক তেজস্ক্রিয় মৌলের নাম লেখো ।
​উত্তর:- রেডিয়াম এবং ইউরেনিয়াম হল দুটি প্রাকৃতিক তেজস্ক্রিয় মৌল ।

​প্রশ্ন:- তেজস্ক্রিয় রশ্মি তেজস্ক্রিয় মৌলের পরমাণুর কোন অংশ থেকে নির্গত হয় ?
​উত্তর:- তেজস্ক্রিয় রশ্মি তেজস্ক্রিয় মৌলের পরমাণুর নিউক্লিয়াস থেকে নির্গত হয় ।

​প্রশ্ন:- ডায়োড ভালভে তড়িৎ প্রবাহের উত্স কী ?
​উত্তর:- ক্যাথোড থেকে তাপ তড়িৎ নিঃসরণই ডায়োডে তড়িৎ প্রবাহের উত্স ।

​প্রশ্ন:- পরমাণুর কোন অংশ থেকে α -কণা নির্গত হয় ?
​উত্তর:- তেজস্ক্রিয় মৌলের পরমাণুর নিউক্লিয়াস থেকে α -কণা নির্গত হয় ।

​প্রশ্ন:- ডায়োডের ফিলামেন্ট কী ? 
​উত্তর:- ডায়োড ভালভের মধ্যে যে দুটি তড়িৎদ্বার থাকে তাদের একটি ইলেকট্রন নিঃসরণ করে, একে ক্যাথোড বা ফিলামেন্ট বলে ।

​প্রশ্ন:- ডায়োডে কয়টি তড়িৎদ্বার থাকে ?
​উত্তর:- ডায়োডে দুটি তড়িৎদ্বার থাকে ।

​প্রশ্ন:- এক্স-রশ্মি তড়িৎক্ষেত্র দ্বারা কিভাবে প্রভাবিত হয় ?
​উত্তর:- এক্স-রশ্মি নিস্তড়িৎ । তাই এক্স-রশ্মি তড়িৎক্ষেত্র দ্বারা প্রভাবিত হয় না ।

​প্রশ্ন:- কোন ঘটনার ওপর ভিত্তি করে ডায়োড তৈরি হয় ?
​উত্তর:- তাপীয় আয়ন নিঃসরণ ঘটনার ওপর ভিত্তি করে ডায়োড তৈরি হয় ।

​প্রশ্ন:- তেজস্ক্রিয়তার আবিষ্কারক কে ?
​উত্তর:- তেজস্ক্রিয়তার আবিষ্কারক হলেন ফরাসি বিজ্ঞানী হেনরি বেকারেল ।

​প্রশ্ন:- এক্স -রশ্মি কী গ্যাসকে আয়নিত করে ?
​উত্তর:- এক্স -রশ্মি গ্যাসের মধ্য দিয়ে যাবার সময় গ্যাসকে আয়নিত করে ।

​প্রশ্ন:- এক্স -রশ্মির আধান কত ?
​উত্তর:- এক্স-রশ্মি নিস্তড়িৎ হওয়ায় তার আধানের পরিমাণ শূন্য ।

Physics থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রশ্ন
Share on Google Plus

About pronabbiswas30

Hello, I am Pronab Biswas a new Blogger from West Bengal. I have written and developed this site so that students and other learn the all general Knowledge and related many other things in their own Bengali Language.
    Blogger Comment
    Facebook Comment

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন